গ্রাফিক ডিজাইন শেখার জন্য ধাপগুলো জেনে নিন। - Graphic School

Blog

গ্রাফিক ডিজাইন শেখার জন্য ধাপগুলো জেনে নিন।

অনলাইনে গ্রাফিক্স সম্পর্কিত কাজের চাহিদা ধীরে ধীরে অনেক বেড়ে যাচ্ছে, সেজন্য আমাদের অনেকের মাঝে গ্রাফিকস শিখার আগ্রহ অনেক বেড়ে গেছে। গ্রাফিকসের কাজের সাথে খুব বেশি শিক্ষাগত যোগ্যতা, বিশেষ করে ইংরেজী জানার খুব বেশি বাধ্যবাধকতা না থাকার কারনে অনেকেই এখন আউটসোর্সিংয়ের কাজে এসইওর চাইতে গ্রাফিকসের কাজে বেশি আগ্রহ দেখা যাচ্ছে।

ধাপঃ ১

অনলাইনে বিভিন্ন টিউটোরিয়ালগুলো খুজে বের করুন, সেগুলো পড়ুন কিংবা ভিডিও হলে দেখুন। আমি আমার করা গ্রাফিকস টিউটোরিয়াল লিংক দিতে পারি, এটাও দেখে প্রাকটিস করতে পারেন।
www.youtube.com/GraphicSchoolBD

ধাপঃ ২

অনেক কিছু শিখতে হবে। যদি আপনার কম্পিউটার সম্পর্কে প্রাথমিক কিছু জ্ঞান থেকে থাকে, তাহলে ইতিমধ্যে হয়ত অনেক কিছুই আপনার জানা আছে।

কি কি শিখতে হবে, তার কিছু এখানে উল্লেখ করছি।

স্ক্যালিং: আপনার ইচ্ছেমত ছবিকে বড় এবং ছোট করা জানতে হবে।
নির্দিষ্ট এলাকাকে কালার, টেক্সচার দিয়ে ফিল আপ করা শিখতে হবে।
ছবির কালার এবং অন্য ধরনের কিছু পরিবর্তন করা শিখুন।
বিভিন্ন কাজের জন্য ভিন্ন ভিন্ন ফরম্যাটে ছবিকে সংরক্ষণ করুন।
ছবির একটি নির্দিষ্ট অংশকে ডিলিট করা কিংবা ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভ করা শিখুন।
ছবিকে ক্রপ (crop) করা, আউটলাইন, এডজ ডিটেকশন করুন।
কপি ও পেস্ট, ড্র্যাগ ও ড্রপ, ডুপলিকেট করা শিখুন।
ছবিকে ফ্লিপ (Flip) করা, বিভিন্ন অ্যাংগেলে রোটেট করা (rotate) করা
মুভ (move), নাডজ (Nudge) এর বিষয় জানতে হবে।
নতুন লেয়ার তৈরি এবং লেয়ারের বিভিন্ন ইফেক্ট জানা থাকতে হবে।
প্রয়োজন অনুযায়ি কালার ব্যবহার করা জানা জরুরী
গ্রে স্ক্যাল (gray scale) কিংবা ছবিকে সাদাকালো কিংবা ছবিকে নেগেটিভ করা জানতে হবে।
টেক্সচার, শ্যাডো এবং অন্যান্য স্পেশাল ইফেক্ট (পোস্টারাইজ (Posterize), পিক্সেলাইজ (Pixelize), অ্যামবুস( Emboss), ব্লার (Blur), শার্পেন ৯ Sharpen) ইত্যাদি ব্যাপারে জানা থাকতে হবে।
বর্ডার (Borders) তৈরি, স্ক্যাল ব্যবহার।
ব্যাকগ্রাউন্ড (Background), ফরগ্রাউন্ড (foreground) সম্পর্কে ধারণা
আইকন এবং লোগো তৈরি
পেজ লেআউট তৈরি, কলাম তৈরি করা শিখতে হবে।
লেখার সাইজ পরিবর্তন, বোল্ড, ইটালিক ইত্যাদি করা জানতে হবে।

ধাপঃ৩

নিজের ব্যক্তিগত কিংবা আশেপাশের অন্যদের প্রফেশনাল কাজগুলো ফ্রি করে দিন। অনেকগুলো রিয়েল প্রজেক্ট করলে মোটামুটি কনফিডেন্ট তৈরি হবে।

ধাপঃ৪

ধাপঃ২ এবং ধাপঃ ৩ এর পর আপনি মোটমুটি কাজ শিখে গেছেন। এবার আপনাকে কনটেস্টে অংশগ্রহন করতে হবে। যদিও কনটেস্টে জয় লাভ করা কষ্টকর। কিন্তু আপনি শুধু জেতার জন্য কনটেস্টে অংশগ্রহণ করবেননা। প্রতিযোগিতার বাজার দেখে নিজেকে আরও দক্ষ করা এবং নিজের দক্ষতাকে সবার সামনে প্রকাশ করার জন্য অনলাইনে বিভিন্ন কনটেস্টে অংশগ্রহণ করুন।

ধাপঃ৫

আপনার করা ডিজাইনকে অনলাইনে বিভিন্ন সাইটে (flickr.compinterest.com) কিংবা নিজের তৈরি করা ব্লগের মাধ্যমে মানুষের কাছে প্রকাশ করুন।

Facebook Comment