টি-শার্ট ডিজাইন কি? শিখে নিন খুব সহজেই - Graphic School

Blog

টি-শার্ট ডিজাইন কি?

আমরা কম বেশি সবাই টিশার্ট পরিধান করি। আসলে এই টিশার্ট কি আমরা হয়তো কেউ কেউ জানিনা। চলুন জেনে নেওয়া যাক টিশার্ট কি? টিশার্ট হলো ইংরেজী শব্দ। মূলত টিশার্ট হলো একধরণের শার্ট যা পরিধান করলে দেহের ওপরের অংশে কাঁধের বেশির ভাগ অংশ ঢেকে রাখে।

খুব সহজে বলা যায় টিশার্টকে অনেকটা ইংরেজী ‘টি’ (T) অক্ষরের ন্যায় দেখতে। সেজন্য এই পোশাককে টিশার্ট নাম দেওয়া হয়েছে। এই ধরনের পোশাকে/টিশার্ট-এ অনেক রকমের ডিজাইন দেখা যায়। যেমন বিভিন্ন দৃশ্য, মানুষের ছবি, গাড়ীর ছবি ইত্যাদি। কিন্তু কিছু কিছু টিশার্টে কোনো কিছু থাকেনা। মানে একেবারে সাদাসিধে। এছাড়া আজকাল টিশার্ট বিজ্ঞাপনের ক্ষেত্রেও অনেক বড় ভূমিকা রাখছে।

এখন আসি কিভাবে আপনি এডোবি ফটোশপ দিয়ে কিভাবে একটি ভালো মানের একটি টিশার্ট ডিজাইন করবেন?

আপনি যদি এডবি ফটোশপ দিয়ে টিশার্ট তৈরী করতে চান তাহলে আপনাকে উক্ত সফটওয়্যার সম্পর্কে ভালো রকমের ধারনা থাকতে হবে। কারণ যদি আপনি কাজের উপকরন সম্পর্কে অজ্ঞ থাকেন তাহলে কাজটি ভালো রকম ভাবে সম্পন্ন করতে পারবেন না।

চলুন আমরা ডিজাইনের কাজ শুরু করি। প্রথমে আপনার কম্পিউটার ডিভাইসের এডোবি ফটোশপ অ্যাপ্লিকেশনটি ওপেন করুন। অ্যাপ্লিকেশনটি ওপেন হলে নিম্নক্ত ছবির মতো পেজ আসবে।(আমার অ্যাপ্লিকেশনটি photoshop cc 2015)

 

এখন আপনি উপরের File অপশনটিতে ক্লিক করুন। ক্লিক করার পরে একটি টেবিল আসবে নিচের মতো।

 

এখানে এবার ৮০০X৮০০ পিক্সেল পরিমাপের একটি নতুন পেজের জন্য Ok বাটনে চাপুন।

 

Ok বাটনে ক্লিক করার পরে উপরিক্ত ছবির মতো একটি উইন্ডো ওপেন হবে। এখানে আপনি মাপ মতো এবং নিজের ইচ্ছা মতো একটি টিশার্ট বানাতে পারেন নিম্নের ন্যায়।

 

(এখানে টিশার্ট তৈরী করার জন্য আপনি যেকোনো ধরনের টুল ব্যবহার করতে পারেন।)

এখন আসি টিশার্টের ডিজাইন নিয়ে।

টিশার্ট ডিজাইন হলো নিজের রুচি মতো। যদি আপনি ক্লায়েন্টের জন্য টিশার্ট বানাতে চান তাহলে আপনাকে তার চাহিদা মতোই বানিয়ে দিতে হবে। যদি ক্লায়েন্ট দিজাইন তৈরী করে নিতে চান তাহলে সেক্ষেত্রে আপনাকে তার কথা মতো এবং তার  চাহিদা অনুসারে এখান থেকেই বিভিন্ন রকমের ডিজাইন তৈরী করতে পারবেন।

আর যদি ক্লায়েন্ট কোনো ছবি বসিয়ে নিতে চান তাহলে ক্লায়েন্টের পছন্দকৃত ছবি File থেকে Place Embedded এ ক্লিক করে একটি ছবি সিলেক্ট করে পজিশন মতো লাগাতে হবে। (আমি নিচে দেখিয়ে দিচ্ছি)

 

ডিজাইন সম্পুন্ন হওয়ার পরে আপনি আবার File ক্লিক করে Save As এ ক্লিক করতে হবে। তার পরে নিচের মতো একটি টেবিল শো করবে।

এখানে আপনি ফাইলটির নাম, কি মোড-এ সেভ রাখতে চান এবং কোথায় সেভ করবেন সেটা নির্ধারণ করে Save বাটনে ক্লিক করতে হবে।

আপনি ডিজাইনটা ভালোভাবে কমপ্লিট করে ফেললেন। কিন্তু এখন আপনি এটা বিক্রি করবেন কোথায়? এর জন্য কিছু মার্কেটপ্লেস আছে। তার মধ্যে বহুল জনপ্রিয় মার্কেটপ্লেস হলো People per hourTeespring. এখানে আপনি আপনার তৈরীকৃত ডিজাইনটি ভালো ডলারে বিক্রি করতে পারবেন।

সর্বশেষে আমি বলবো, একজন ডিজাইনারের বর্তমানে অনেক ভ্যালূ। কিন্তু সেই পজিশনে উঠতে গেলে আপনাকে অনেক ক্রিয়েটিভ হতে হবে। কারণ এধরনের কাজের জন্য কোনো কোয়ালিফিকেশনের বা কোনো পূঁজির প্রয়োজন নেই। আপনার দক্ষতাই হবে এখানে আপনার কোয়ালিফিকেশন ও পুজি।সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে আমার ছোট্ট লেখা এখানেই শেষ করছি।

আসসালামু আলাইকুম

 

লিখেছেন 

মোঃ রিয়াদ আহম্মেদ

Facebook Comment