ফাইভার মার্কেটপ্লেস সম্পর্কে কিছু তথ্য - Graphic School

Blog

ফাইভার মার্কেটপ্লেস সম্পর্কে কিছু তথ্য

বর্তমানে ফাইভার একটি জনপ্রিয় অনলাইন মার্কেটপ্লেসের নাম। এটি মুলতো কেনা বেচার একটি জনপ্রিয় জায়গা যেখানে আপনি বিক্রি করবেন এবং অন্য একজন বায়ার সেটা কিনবে। এখানে আপনি বিভিন্ন প্রযুক্তি ভিত্তিক কাজ করতে পারবেন।

তবে এখানে কাজ করতে হলে অবস্যই আপনাকে কোন কাজে দক্ষতা অর্জন করতে হবে। আপনি যে কাজে পারদর্শী তেমন কিছু কাজ দিয়ে আপনার একাউন্ট সাজিয়ে রাখবেন যাতে বায়ার সেটা দেখে আকর্ষিত হয়ে আপনাকে কাজ দেয়। মোটামুটি আমাদের বাস্তব জিবনের দোকান সাজানোর মত অনেকটা।

ধরুন আপনি একজন দক্ষ গ্রাফিক ডিজাইনার। এখন আপনার নিজের তৈরি কিছু আকর্ষনীয় ডিজাইন দিয়ে আপনার একাউন্ট সাজাতে হবে যেটাকে ফাইভারের ভাষায় গিগ বলা হয়। আপনার গিগ যত আকর্ষনীয় হবে তত আপনার কাছে কাজের রিকুয়েস্ট আসবে। আর সেসব কাজ সফল ভাবে করে দিতে পারলেই ঘরে বসে আপনি অনেক টাকা আয় করতে পারবেন।

দেখে নেয়া যাক ফাইভারে কি কি কাজ করে নেয়া হয়।

Graphics & Design

এই ক্যাটাগরিতে বিভিন্ন ডিজাইনের কাজ করিয়ে নেয়া হয়। যেমনঃ Logo Design, Banner Design, Book Cover Design, T-Shirt Design ইত্যাদি। ধরুন আপনি লোগো ডিজাইনে এক্সপার্ট, আপনার গিগে নিজের তৈরি সুন্দর সুন্দর ৫/৬ টা লোগো রাখুন। যেটা দেখে বায়ারের পছন্দ হবে এবং সে আপনাকে কাজ দিবে।

Digital Marketing

এই সেক্টরে ওয়েবসাইট সপর্কিত কাজ করা হয়। যেমনঃ SEO, Email Marketing, Web Analysis, Ecommerce Marketing, Mobile Advertising ইত্যাদি। কোন কোম্পনির ওয়েবসাইটকে সার্চ ইঞ্জিনে প্রথমে দেখানো, সেসব কোম্পানি অনালাইন মার্কেটিং করে তাদের কাজে সাহায্য করা সহ আরো অনেক কাজ এই ক্যাটাগরির মধ্যে পরে।

Writing & Translation

এই ক্যাটাগরিতে সবরকম লেখালেখির কাজ করা হয়। যেমনঃ বিভিন্ন Article ও Blog লেখা, Resume & Cover Letter, বিভিন্ন ভাষার লেখাকে ইংরেজিতে ট্রান্সলেট করা ইত্যাদি। কোন একটা বিষয়ের উপরে ব্লগ লিখতে হবে, আবার কারো জীবন বৃত্তান্ত তৈরি করা, নিজেস্ব লেখা বিক্রি করা সহ আরো অনেক কাজ করা হয়ে থাকে।

 

Video & Animation

Video & Animation ক্যাটাগরিতে রয়েছে Video Editing, Animated Logo, Promotional Ads, Short Video Ads, Animation Models তৈরির কাজ। ধরুন কোন বায়ার তার প্রতিষ্ঠানের জন্য কোন ভিডিও দিয়ে অথবা এ্যানিমেশন দিয়ে এ্যাড তৈরি করবে। আপনি যদি সে কাজে এক্সপার্ট হোন তাহলে আপনার প্রোফাইলে বিভিন্ন এ্যানিমেশন দিয়ে সুন্দর করে গিগ তৈরি করে রাখবেন তাহলেই বায়ার আপনাকে কাজ দিবে।

 

Music & Audio

এই ক্যাটাগরিতে Mixing & Mastering, Song Composing, Song Writing, Sound Effect ইত্যাদি কাজ করা হয়। এখানের কাজ করতে হলে আপনাকে সংগিত জগতে একজন হতে হবে। যেমনঃ নিজের লেখা গান, নিজের করা সুর, গানে বিভিন্ন সাউন্ড ইফেক্ট দেয়া এসবে এক্সপার্ট হতে হবে। এরকম কিছু দিয়ে আপনার গিগ তৈরি করে রাখতে হবে।

 

Programming & Tech

এটা ফাইভার মার্কেটপ্লেসের অনেক দামি একটা অংশ। এখানে Web Design & Development, WordPress, Web Programming, Mobile & Computer Applications, Database ইত্যাদি কাজ করা হয়। আপনি যদি একজন ওয়েব ডিজাইনার এবং ডেভলপার হয়ে থাকেন তাহলে এখানে কাজ করতে পারবেন। আবার যদি প্রোগ্রামার হয়ে থাকেন তাহলে এই সেক্টরে অনেক কাজ পাবেন। অনলাইন মার্কেটে এসব কাজের অনেক দাম। তবে আপনাকে সঠিক ভাবে কাজ করতে হবে।

 

Business

এই ক্যাটাগরিতে ব্যাবসা সংক্রান্ত বিভিন্ন কাজ করা হয়ে থাকে। যেমনঃ Business Plans, Business Advice, Financial Consulting, Legal Consulting, Presentation ইত্যাদি। বায়ার তার ব্যাবসা সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে আপানার সাহায্য নিবে, আইনানুক তথ্য গ্রহন করবে, কাজের প্রেজেন্টেশন তৈরি করে নিবে ইত্যাদি। আপনি যদি এসব বিষয়ে এক্সপার্ট হয়ে থাকেন তাহলে আপনার জন্য এই সেক্টরে অনেক কাজ আছে।

 

Fun & Lifestyle

এই সেক্টরে Relationship Advice, Health & Fitness Tips, Astrology, Family Advice, Greetings Cards, Viral Videos, Pranks, Celebrity News ইত্যাদি কাজ হয়ে থাকে। এসব কাজের যদি আপনার দক্ষতা থাকে তাহলে আপনি এ ক্যাটাগরিতে কাজ করতে পারবেন।

 

 

উপরের ক্যাটাগরি গুলোর মধ্যে ফাইভারে গ্রাফিক ডিজাইনে বর্তমানে অনেক চাহিদা রয়েছে। আপনি যদি একজন দক্ষ গ্রাফিক ডিজাইনার হোন তাহলে ফাইভারে আপনি অনেক অনেক কাজ পাবেন।

আসুন দেখি ফাইভারে গ্রাফিক ডিজাইনের কি কি কাজ করে নেয়া হয়।

 

যদি আপনি এখনো গ্রাফিক ডিজাইন না শিখে থাকেন এবং শেখার চিন্তা করছেন তাহলে আপনি ঘরে বসেই গ্রাফিক স্কুলের মাধ্যমে এডভান্স লেভেলের গ্রাফিক ডিজাইন শিখতে পারবেন। গ্রাফিক স্কুলে গ্রাফিক ডিজাইন থেকে শুরু করে ফ্রিল্যান্সিং পর্যন্ত ভিডিও টিউটোরিয়াল আছে যা দেখে এবং প্র্যাক্টিস করে আপনিও নিজেকে একজন দক্ষ গ্রাফিক ডিজাইনার এবং ফ্রিল্যান্সার হিসেবে গড়ে তুলতে পারবেন। তাহলে আর দেরি না করে এখনি গ্রাফিক স্কুলের ওয়েবসাইট ঘুরে আসুন এবং পছন্দ হলে ভিডিও টিউটোরিয়ালের ডিভিডি অর্ডার করুন এখানে… graphicschoolbd.com

 

ফাইভারে কাজ করার পদক্ষেপসমূহ

 

  • প্রথমে আপনার একটা ফাইভার একাউন্ট থাকতে হবে। ফাইভারে কখনো ব্যক্তিগত কোন তথ্য দেয়া যাবেনা। ফাইভার চায়না যে কোন ওয়ার্কার সরাসরি বায়ারের সাথে যোগাযোগ করুক।
  • ফাইভারের সকল নিয়ম মেনে আপনি যেসব কাজে দক্ষ সেসব কাজের উপরে আকর্ষনীয় গিগ তৈরি করবেন।
  • সঠিক নিয়মে গিগ তৈরি করা থাকলে ফাইভার নিজেই আপনার গিগ মার্কেটিং করবে।
  • আপনার কাজের ক্যাটাগরি অনুযায়ী আপনার কাছে বায়ার রিকুয়েষ্ট আসবে এবং আপনাকে তার সঠিক রিপ্লে দিতে হবে।
  • আপনার গিগ পছন্দ হলে বায়ার আপনাকে কাজ দিবে।
  • কাজ সম্পর্কে সবকিছু বায়ারের কাছে জেনে নিতে হবে।
  • এরপর কাজ সম্পুর্ন করে বায়ারের কাছে জমা দিতে হবে। তাহলে আপনার কাঙ্ক্ষিত মুল্য পেয়ে যাবেন। যদি বায়ার আপনার কাজে অনেক খুশি হয় তাহলে আপনাকে কিছু অতিরিক্ত মুল্য দিবে যাকে টিপস বলা হয়।
  • এরপর আপনি আপনার আয় করা অর্থ ব্যাংকে ট্রান্সফার করবেন।

 

এই ছিল আজকের পর্বে। আগামি পর্বে অন্য কোন মার্কেটপ্লেস নিয়ে আলোচনা করবো। সবাই ভাল থাকবেন। খোদা হাফেজ।

Facebook Comment